img

জনপ্রিয় লেখক ও শিক্ষাবিদ অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল বলেছেন, তারুণ্য বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় শক্তি। একাত্তরে পৃথিবীর শক্তিশালী অনেক দেশ আমাদের বিপক্ষে ছিল। তারপরও এদেশের তরুণেরা অসীম সাহসিকতার সঙ্গে মুক্তিযুদ্ধ করেছিলেন বলেই আমরা বাংলাদেশ পেয়েছি।

রোববার বিকেলে সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে অনুবীক্ষণ তারুণ্যের জয়োৎসবের সূচনা পর্বে প্রধান অতিথির বক্তৃত্বায় ড. জাফর ইকবাল একথা বলেন।

সিলেটের অন্যতম সামাজিক সংগঠন 'অনুবীক্ষণ'এর প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এতে সিলেটের বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনকে সম্মাণনা প্রদান করা হয়। এই আয়োজনের দ্বিতীয় পর্বে প্রধান অতিথি হিসেবে সিলেটের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বিভিন্ন সংগঠনের হাতে অনুবীক্ষণ সম্মাননা তুলে দেন। জাতীয় সংগীতের মধ্য দিয়ে এই অনুষ্ঠান শুরু হয়। দুই পর্বের মাঝে অনুবীক্ষণ পরিচালিত মুণ্ডা স্কুলের শিক্ষার্থীদের নৃত্য এবং সিলেটের বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের কর্মকাণ্ডের উপর একটি তথ্যচিত্র প্রদর্শণ করা হয়।

অনুবীক্ষণের সভাপতি শফিকুর রহমান হিমুর সভাপতিত্বে সূচনা পর্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন সিলেট মহানগর পুলিশের উপ-কমিশনার (ট্রাফিক) ফয়সল মাহমুদ, সিলেট সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ নাছিমা খান ও গ্রিন ডিজেবল ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক মো. বায়েজিদ খান। সারিয়া মুসকান ও সাইবান বিনতে সাহাজের যৌথ সঞ্চালনায় এই পর্বে স্বাগত বক্তৃতা করেন অনুবীক্ষণ তারুণ্যের জয়োৎসবের আহবায়ক জহুরুল ইসলাম শাহরিয়া।

ড. জাফর ইকবাল মুন্ডাদের শিক্ষার উন্নয়নে কাজ করায় অনুবীক্ষণের প্রশংসা করে বলেন, নানা জাতিগোষ্টির মানুষ রয়েছে বলে এই দেশ অনেক আকর্ষণীয়। জাতিগোষ্টিকে সহায়তায় এগিয়ে আসতে হবে।

রাতের পর্বে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, সবাই নিজ নিজ অবস্থান থেকে কাজ করলে দেশ ও সমাজ এগিয়ে যাবে। তিনি নগরীর উন্নয়নে সবাইকে সহযোগিতার আহবান জানান। 

এই পর্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন অনুষ্ঠানের সহযোগী প্রতিষ্ঠান ফিজা এন্ড কোংয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নজরুল ইসলাম বাবুল, দৈনিক সিলেটের ডাকের ব্যবস্থাপনা সম্পাদক ওয়াহিদুর রহমান ওয়াহিদ, ছাত্রনেতা জাহাঙ্গীর আলম ও ব্যবসায়ী ইসতিয়াক আহমদ সিদ্দিকী। করবী নুসরাত ও আতিফ রায়হানের যৌথ সঞ্চালনায় এই পর্বে শুভেচ্ছা বক্তৃতা করেন অনুবীক্ষণের সাধারণ সম্পাদক মো. বদরুল ইসলাম।

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ