img

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেছেন, নেতৃত্ব বিকাশের আদর্শ স্থান হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়। জাতিগঠনে বিশ্ববিদ্যালয়ের গুরুত্ব অপরিসীম। এখানে কেবল পুথিগত বিদ্যা প্রদান করে না, শিক্ষার্থীদের অতীতের সাথে বর্তমানের যোগসূত্র ঘটায়, তাদের সমকালীন আর্থ-সামাজিক ও রাজনৈতিক বিষয়ে সচেতন করে তোলে এবং বিশ্বনাগরিকে পরিণত করে।

রোববার বিকালে নোয়াখালী বিজ্ঞান প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (নোবিপ্রবি) দ্বিতীয় সমাবর্তনে সভাপতির বক্তব্যে রাষ্ট্রপতি এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে সমাবর্তন বক্তা ছিলেন একুশে পদকপ্রাপ্ত বিশিষ্ট সমাজবিজ্ঞানী অধ্যাপক অনুপম সেন। 

বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. এম অহিদুজ্জামান, শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এবং নোবিপ্রবি কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ ফারুক উদ্দিন।

রাষ্ট্রপতি বলেন, আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের প্রতিটি খাতে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। উন্নয়ন ও অগ্রগতির এ ধারাকে অব্যাহত রাখতে সঠিক ও যোগ্য নেতৃত্বের বিকল্প নেই। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে আমরা স্বাধীরতা পেয়েছি, আর তারই সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ উন্নয়নের অভিষ্ট লক্ষে এগিয়ে যাচ্ছে।

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপুমনি বলেন, জাতিস্বত্বা বিকাশে গুনগত শিক্ষার কোন বিকল্প নেই। শিক্ষাক্ষেত্রে মানোন্নয়ের বিষয়কে সব্বোর্চ্চ অগ্রাধিকার দিচ্ছে বর্তমান সরকার। রাষ্ট্রপতি স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রায় অংশ নেয় এবং নবনির্মিত বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেসা মুজিব হল উদ্বোধন করেন। সমাবর্তনে শিক্ষার্থীদের ১০টি স্বর্ণপদক প্রদান করা হয়। এর মধ্যে স্নাতক পর্যায়ের ৬ জন চ্যান্সেলর স্বর্ণপদক ও স্নাতকোত্তর ৪ জন পান ভাইস-চ্যান্সেলর স্বর্ণপদক। 

সমাবর্তনে ২ হাজার ২৬৩ জনকে স্নাতক ডিগ্রি ও ৪৪৫ জনকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি এবং ২১৮ জনকে স্নাতকোত্তর ডিপ্লোমা ডিগ্রি প্রদান করা হয়।

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ