img

মানুষ এখন লোভের বশবর্তী হয়ে দুর্নীতি করছে। দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) সেই লোভের জিহ্বা কেটে দেবে। জিহ্বা কেটে দেওয়ার কাজ শুরু হয়েছে। দুদকের কৌশলপত্র-২০১৯ প্রণয়ন উপলক্ষে এক মতবিনিময় সভায় এসব কথা বলেন দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ।

রোববার কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ওই সভা অনুষ্ঠিত হয় রাজধানীর সেগুনবাগিচায় দুদকের প্রধান কার্যালয়ে।

দুদক চেয়ারম্যান বলেন, 'যারা দুর্নীতি করে তাদের শাস্তি হয় না-এই কথাটি সঠিক নয়। এবারও দুর্নীতি মামলায় ৬৩ শতাংশ আসামির সাজা হয়েছে। এটি দুদকসহ সহলের ঐকান্তিক প্রচেষ্টার ফল।' তবে কাঙ্খিত মাত্রায় দুর্নীতি কমানো সম্ভব হয়নি বলে স্বীকার করেন তিনি।

রোববারের ওই সভায় দুদক কমিশনার (তদন্ত) এএফএম আমিনুল ইসলাম, কমিশনার (অনুসন্ধান) ড. মো. মোজাম্মেল হক খান, সচিব মুহাম্মদ দিলোওয়ার বখ্‌তসহ উর্ধ্বতন কমর্ককর্তারা উপস্থিত ছিলেন। সভায় কৌশলপত্রের বিভিন্ন দিক উপস্থাপন করেন দুদক মহাপরিচালক (প্রতিরোধ) ড. সারোয়ার মাহমুদ। সভায় সারাদেশের ২৫-৩০টি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

সভায় দুর্নীতি দমন ও প্রতিরোধ বিষয়ে নানা প্রস্তাব, সুপারিশ তুলে ধরেন কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। তারা দেশের উন্নয়নে অস্বচ্ছ প্রশাসন, জালিয়াতি, প্রতারণা, ভেজালের বিরুদ্ধে বক্তব্য তুৃলে ধরেন। তারা বলেন, দেশ ও আগামী প্রজন্মের স্বার্থে দুর্নীতির বিরুদ্ধে আপসহীনভাবে কাজ করতে হবে। তরুণ প্রজন্মকে জাগিয়ে তুলতে হবে। সম্মিলিত প্রচেষ্টায় দুর্নীতির বিরুদ্ধে জনমত গড়ে তোলার তাগিদ দেন তারা।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী তামান্না রিফাত আরা বলেন, 'অসৎ ব্যক্তিরা যাতে দুর্নীতি করতে না পারে তার জন্য একটি সুনির্দিষ্ট কাঠামো থাকতে হবে। পদ্ধতিগত পরিবর্তনের মাধ্যমে দুর্নীতির ফাঁক-ফোকড় বন্ধ করতে হবে।'

ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজের মোস্তফা জামান বলেন, 'দুর্নীতি দমনে তরুণদের অংশগ্রহণ অত্যন্ত জরুরি।'

দুর্নীতি বিরোধী প্রজন্ম গড়ে তোলার পরামর্শ দিয়েছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শাহীনুর রহমান। তিনি বলেন, 'রাজনৈতিক আশ্রয় নিয়ে যাতে কোনো দুর্নীতিবাজ পার না পায়, তার জন্য দুদককে কঠোর হতে হবে।'

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ